Home জেলা অভূতপূর্ব নিরাপত্তার চাদরে চন্দননগর, তৎপর পুলিশ-প্রশাসন

অভূতপূর্ব নিরাপত্তার চাদরে চন্দননগর, তৎপর পুলিশ-প্রশাসন

98
0

স্পট নিউজ লাইভ :ঃ ২রা,নভেম্বর ঃঃ চন্দননগর  ::জগদ্ধাত্রী পুজোর নিরাপত্তাকে সুনিশ্চিত করতে, নিরাপত্তার নিশ্ছিদ্র চাদরে মুড়ে ফেলল হুগলি জেলার সাধারণ ও পুলিশ প্রশাসন।  এক সাংবাদিক সম্মেলন করে চন্দননগরের পুলিশ কমিশনার হুমায়ুন কবীর নিরাপত্তার বিষয়টি বিস্তারিত জানান।

ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের দুই মন্ত্রী তপন দাসগুপ্ত, ইন্দ্রনীল সেন সহ পুলিশ কমিশিনারেটের পদস্থ কর্তারা। জগদ্ধাত্রী পুজোকে কেন্দ্র করে প্রতিবছরই লক্ষ লক্ষ মানুষের সমাগম হয় চন্দননগর সহ মানকুণ্ডু ও ভদ্রেশ্বরে। শুধু শহর বা জেলার দর্শনার্থী নন, আসে পাশের জেলা এমনকি ভিন্ন রাজ্য ও বিদেশ থেকেও মানুষ ভিড় জমান। এতো মানুষের সমাগমে প্রতি বছরই ছোটোখাটো অপরাধ বা দুর্ঘটনা ঘটে। সেদিকে নজর রেখেই পুলিশ প্রশাসন এবার তৎপর হয়েছে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা কার্যকর করতে।

জগদ্ধাত্রী পুজোর পাঁচদিন চন্দননগর, মানকুন্ডু ও ভদ্রেশ্বরের নিরাপত্তার জন্য প্রায় হাজারেরও বেশী পুলিশ কর্মী মোতায়েন করা হচ্ছে। এর মধ্যে ১ হাজার হোমগার্ড, এএসপি পদ মর্যাদার ৬ জন, ইন্সপেক্টর পদ মর্যাদার মোট ২৫ জন পুলিশ অফিসার দায়িত্বে থাকছেন। মহিলা পুলিশ কর্মী থাকছেন ৫০০ জন। রাস্তাঘাটে মহিলাদের নিরাপত্তায় সাদা পোষাকে মহিলা পুলিশ কর্মী থাকছেন ২০০ জন।

জল পথে নজরদারি চালানোর জন্যে ৫টি লঞ্চের ব্যাবস্থা করা হয়েছে। শহরের ঢোকা এবং বেরোনোর মুখে থাকছে “নো এন্ট্রি পয়েন্ট”। শুক্রবার থেকেই চালু হচ্ছে সেই নিয়ম বিধি। বিকেল ৫টা থেকে পরদিন ভোর ৪টা পর্যন্ত চন্দননগর শহর জুড়ে থাকবে এই নো-এন্ট্রি। বিভিন্ন গঙ্গার ঘাটেও চলবে পুলিশের নজরদারি। থাকছে চারটি ড্রোনের নজরদারী।

পুরো শহরের নজরদারির জন্যে শহর জুড়ে ২০০ সি সি টিভি ক্যামেরা লাগানো হচ্ছে। আগুনের মত দুর্ঘটনা থেকে সতর্কতার জন্য শহরের ছয়টি জায়গায় ফায়ার ব্রিগেডের পয়েন্ট করা হচ্ছে। তিনটি শহরের রেল স্টেশন চত্বরেও থাকবে পুলিশি নজর। শহরের বিভিন্ন জায়গায় থাকছে মেডিক্যাল টিম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here